নাটোরে ঢাকার বার ড্যান্সার শম্পাকে তার স্বামী শ্বাসরোধ করে হত্যার রহস্য উন্মোচন করলো পুলিশ, স্বামী আটক

1610877475396 11
image_pdfimage_print
নাটোর প্রতিনিধি।

নাটোরের লালপুরে অজ্ঞাত তরুনী হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। লাশের পরিচয় ও হত্যার কারণ উদঘাটন হলেও নিহতের পরিবার লাশ গ্রহণ করেনি।

ফলে পুলিশ তরুণীর লাশ দাফন করার জন্য আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের হাতে তুলেদেন।আজ রোববার দুপুরে পুলিশ সাপারের কার্যালয়ের সামনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে  এসব তথ্য জানান,নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা।

তিনি আরো জানান, রাজবাড়ি জেলার পাংশ পৌরসভার নারায়নপুর এলাকার শম্পা খাতুন ঢাকার বিভিন্ন বারে ড্যান্সার হিসাবে কাজ করতো। এরপরে ইট ভাটা শ্রমিক হিসাবে কাজ করতে গিয়ে স্বামী আনছের আলী সাথে পরিচয় পরে বিয়ে।

আনছের আলী বাড়ি পাবনার চকবারেরা গ্রামের। স্ত্রী অসৎ পথে চলে আর ওই পথ থেকে ফেরাতে না পেরে গত ১৩ জানুয়ারী বেড়ানোর কথা বলে নাটোরের লালপুর উপজেলার সাদিপুর গ্রামের রেল লাইনের পাশে  নিয়ে যায়। নির্জনস্থানে সেখানে গলায় ওড়না পেচিয়ে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

জেলা পুলিশের একাধিক টিম মানিকগঞ্জ, সাভার, আশুলিয়া ও পাবনায় ব্যাপক অভিযান চালিয়ে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে শম্পার স্বামী আনছেরকে শনিবার রাতে নাটোরের গুরুদাসপুর থেকে গ্রেফতার করে। পুলিশের কাছে অকপটে হত্যার কথা স্বীকার করে গ্রেফতারকৃত আনছের।

Leave a Reply